Assignment

“বঙ্গবাণী ও কপোতাক্ষ নদ উভয় কবিতাতেই মাতৃভাষা প্রীতির মাধ্যমে দেশপ্রেম প্রকাশ পেয়েছে” মন্তব্যটির স্বপক্ষে যুক্তি উপস্থাপন কর।

প্রিয় শিক্ষার্থীবৃন্দ, আশা করছি সবাই ভালো আছো। তোমরা কি ৯ম শ্রেণির ৮ম সপ্তাহের বাংলা তৃতীয় অ্যাসাইনমেন্টের উত্তর সম্পর্কে ধারণা নিতে চাচ্ছো? কিংবা এসাইনমেন্টটি কিভাবে প্রস্তুত করতে হয় সে সম্পর্কে জানতে আগ্রহী? তাহলে বলবো তোমরা ঠিক ওয়েবসাইটে এসেছো। তোমাদের জন্য আজকের আর্টিকেলটিতে রয়েছে- বঙ্গবাণী ও কপোতাক্ষ নদ কবিতায় দেশপ্রেম সম্পর্কিত আলোচনা।

৯ম শ্রেণির ৮ম সপ্তাহের বাংলা তৃতীয় অ্যাসাইনমেন্টের উত্তর

 

বঙ্গবাণী ও কপোতাক্ষ নদ কবিতায় দেশপ্রেম সম্পর্কিত আলোচনা:

বঙ্গবাণী’ ও ‘কপোতাক্ষ নদ’ উভয় কবিতাতেই মাতৃভাষা প্রীতির মাধ্যমে দেশপ্রেম প্রকাশ পেয়েছে- মন্তব্যটির স্বপক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করা হলো।

‘বঙ্গবাণী’ কবিতাটি কবি আবদুল হাকিমের ‘নূরনামা’ কাব্যগ্রন্থ থেকে সংকলন করা হয়েছে। মধ্যযুগীয় পরিবেশে বঙ্গভাষী এবং বঙ্গভাষার প্রতি এমন বলিষ্ঠ বাণীবদ্ধ কবিতার নিদর্শন দুর্লভ।

‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতাটি কবির চতুর্দশপদী কবিতাবলি থেকে গৃহীত হয়েছে। এই কবিতায় কবির স্মৃতিকাতরতার আবরণে তাঁর অত্যুজ্জ্বল দেশপ্রেম প্রকাশিত হয়েছে।কবি ‘বঙ্গবাণী’ কবিতায় তাঁর গভীর উপলব্ধি ও বিশ্বাসের কথা নির্দ্বিধায় ব্যক্ত করেছেন। আরবি ফার্সি ভাষার প্রতি কবির মোটেই বিদ্বেষ নেই। এইসব ভাষায় আল্লাহ ও মহানবীর স্মৃতি বর্ণিত রয়েছে। তাই এসব ভাষার প্রতি সবাই পরম শ্রদ্ধাশীল। যে ভাষা জনসাধারণের বোধগম্য নয়, যে ভাষায় অন্যের সঙ্গে ভাব বিনিময় করা যায় না সেসব ভাষাভাষী লোকের পক্ষে মাতৃভাষায় কথা বলা বা লেখাই একমাত্র পন্থা। একারণেই কবি মাতৃভাষায় গ্রন্থ রচনায় মনোনিবেশ করেছেন।

আপনি পছন্দ করতে পারেন-

৯ম শ্রেণির ৮ম সপ্তাহের এ্যাসাইনমেন্ট কৃষি, চারু কারু, গার্হস্থ্য,

৯ম শ্রেণির ৮ম সপ্তাহের এ্যাসাইনমেন্ট বাংলা, উচ্চতর গণিত, অর্থনীতি

তৎকালীন এ দেশের রাষ্ট্রভাষা ছিল ফারসি। ধর্মীয় কুসংস্কারাচ্ছন্ন কিছু রক্ষণশীল গোঁড়া ব্যক্তিবর্গ তাদের মাতৃভাষা বাংলাকে বাদ দিয়ে আরবি-ফারসির প্রতি গভীর অনুরাগ দেখাতে থাকে। কূপমণ্ডূকতার কারণে তারা মনে করত, কোরআন-হাদিসের ভাষা যেহেতু আরবি, কাজেই আরবি-ফারসি ভাষা ছাড়া আল্লাহ-রাসুলের সান্নিধ্য লাভ সম্ভব নয়। তা ছাড়া এ দেশের প্রাচীন অধিবাসী ছিল হিন্দু এবং তাদের ভাষা ছিল বাংলা। বাংলা বর্ণমালাগুলো এসেছে ব্রাহ্মীলিপি থেকে, যা হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকদের তৈরি করা। তাই মুসলমান হয়ে এ ভাষাকে ভালোবাসা সম্ভব নয়। এ কারণে তারা বাংলা ভাষাকে অবজ্ঞা করে হিন্দুর অক্ষর বলত।

‘বঙ্গবাণী’ শব্দটির অর্থ বাংলা ভাষা। এমন এক সময় ছিল যখন মুসলিম সমাজ বাংলাভাষাকে ধর্ম ও জ্ঞান চর্চার বাহন হিসেবে গ্রহণ করতে দ্বিধান্বিত ছিলেন। আব্দুল হাকিম মধ্যযুগের কবি। কিন্তু আশ্চর্য স্বাভাবিক বুদ্ধিতে তিনি এর ভ্রান্তি বুঝতে পেরেছিলেন। এ ভ্রান্তির কথাই তিনি বলেছেন ‘বঙ্গবাণী’ কবিতায়। এ কবিতায় কবি মাতৃভাষা ও স্বদেশের গুণগান গেয়েছেন। কবির মতে, মানুষ মাত্রই নিজ ভাষায় স্রষ্টাকে ডাকে আর স্রষ্টাও মানুষের বক্তব্য বুঝতে পারেন। কবির চিত্তে তীব্র ক্ষোভ এজন্য যে, যারা বাংলাদেশের জন্মগ্রহণ করেছে, অথচ বাংলা ভাষার প্রতি তাদের মমতা নেই, তাদের বংশ ও জন্ম পরিচয় সম্পর্কে কবির মনে সন্দেহ জাগে।

কবি সখেদে বলেছেন, এসব লোক, যাদের মনে স্বদেশের ও স্বভাষার প্রতি বিন্দুমাত্র অনুরাগ নেই তারা কেন এদেশ পরিত্যাগ করে অন্যত্র চলে যায় না! বংশানুক্রমে বাংলাদেশেই আমাদের বসতি, বাংলাদেশ আমাদের মাতৃভূমি এবং মাতৃভাষায় বর্ণিত বক্তব্য আমাদের মর্ম স্পর্শ করে। এই ভাষার চেয়ে হিতকর আর কি হতে পারে!

Class 9 Assignment 2022 8th Week PDF

বঙ্গবাণী ও কপোতাক্ষ নদ কবিতায় দেশপ্রেম সম্পর্কিত আলোচনা

কপোতাক্ষ নদ’ কবিতার কবি যশোর জেলার কপোতাক্ষ নদের তীরে সাগরদাঁড়ি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। শৈশবে মধুসূদন এই নদের তীরে প্রাকৃতিক পরিবেশে বড় হয়েছেন। যখন তিনি ফ্রান্সে বসবাস করেন,তখন জন্মভূমির শৈশব-কৈশোরের বেদনা-বিধুর স্মৃতি তাঁর মনে জাগিয়েছে কাতরতা। মাতা, মাতৃভাষা ও মাতৃভূমির প্রতি মানুষের টান থাকে শৈশব থেকেই। একটি সংস্কৃতি শ্লোকে বলা হয়েছে ‘জননী জন্মভূমি স্বর্গাদপি গরীয়সী’ অর্থাৎ জননী জন্মভূমি স্বর্গের চেয়ে গরীয়ান। তাই মানুষ তার জন্মভূমিকে কোনদিন ভুলে না।

উক্ত কবিতা থেকে জানা গেছে কবি কত গভীরভাবে কপোতাক্ষ নদী কে ভালোবেসেছেন ও স্মরণ করেছেন। কপোতাক্ষকে ঘিরেই কবির স্বদেশপ্রেম উচ্চকিত হয়েছে। তাই কপোতাক্ষ সনেটটির মধ্য দিয়ে কবির প্রগাঢ় স্বদেশপ্রেম প্রকাশিত হয়েছে। দূরে বসেও তিনি যেন কপোতাক্ষ নদের কলকল ধ্বনি শুনতে পান।

কপোতাক্ষ নদ’ কবিতায় কবির স্মৃতিকাতরতার আবরণে অত্যুজ্জ্বল দেশপ্রেম প্রকাশিত হয়েছে। কপোতাক্ষ নদের তীরে প্রাকৃতিক পরিবেশে বেড়ে ওঠা কবি সুদূর ফ্রান্সে বসবাস করেও স্মৃতিকাতর হয়েছেন, দূরে বসেও তিনি কপোতাক্ষ নদের কলকল ধ্বনি শুনতে পান। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে, বিভিন্ন নদ-নদীর পানি পান করে কণ্ঠের পিপাসা মিটালেও হৃদয়ের তৃষ্ণা একমাত্র কপোতাক্ষের জলই দূর করতে পেরেছে। কেননা, ওই নদের সঙ্গে রয়েছে তাঁর আত্মিক সংযোগ বা নাড়ির বন্ধন। কবির মনে সন্দেহ জাগে তিনি আবার তাঁর শৈশব-কৈশোরের স্মৃতিবিজড়িত কপোতাক্ষ নদের দেখা পাবেন কি না!

কত দেশে কত নদ-নদী তিনি দেখেছেন, কিন্তু জন্মভূমির এই নদ যেন মায়ের স্নেহডোরে তাঁকে বেঁধেছে, কিছুতেই তিনি তাকে ভুলতে পারেন না। কবির মনে সন্দেহ জাগে, আর কি তিনি এই নদের দেখা পাবেন! কপোতাক্ষ নদের কাছে তাঁর সবিনয় মিনতি-বন্ধুভাবে তাকে তিনি স্নেহাদরে যেমন স্মরণ করেন, কপোতাক্ষও যেন একই প্রেমভাবে তাঁকে সস্নেহে স্মরণ করে। কপোতাক্ষ নদ যেন তার স্বদেশের জন্য হৃদয়ের কাতরতা বঙ্গবাসীদের নিকট ব্যক্ত করে।

উপরোক্ত আলোচনা থেকে সহজেই প্রতীয়মান হয় যে, বঙ্গবাণী ও কপোতাক্ষ নদ উভয় কবিতারই মূলভাব দেশপ্রেম ।

এই ছিল তোমাদের ৯ম শ্রেণির ৮ম সপ্তাহের বাংলা তৃতীয় অ্যাসাইনমেন্টের উত্তর- বঙ্গবাণী ও কপোতাক্ষ নদ কবিতায় দেশপ্রেম সম্পর্কিত আলোচনা।

 

আরো দেখুন-

অনাসক্ত কর্ম সম্পর্কে শ্রীকৃষ্ণের বাণী সমূহ ব্যক্তি জীবনে প্রয়োগ করার উপায়

সকালে ঘুম থেকে উঠে এবং রাতে ঘুমানোর পূর্ব পর্যন্ত ইবাদতের তালিকা

Tags

Siam Shihab

Hello, I'm Siam Shihab. I write Content about all Trending News and Information. I'm working on this Website since June 2021. You can Visit my Profile page to read all of my content. Thank You so much to know about me.
Back to top button
Close