Home » দাম্পত্য জীবন » স্বামী-স্ত্রী সহবাসের সময় সম্পূর্ণরুপে বিবস্ত্র হতে পারবে নাকি পারবে না?

স্বামী-স্ত্রী সহবাসের সময় সম্পূর্ণরুপে বিবস্ত্র হতে পারবে নাকি পারবে না?

Share Button

muslim married

সম্পূর্ণরুপে বিবস্ত্র মূলত লজ্জাশীলতার পরিচয়। শরীয়তে তা হারাম নয়। ঘর বা রুম বন্ধ থাকলে এবং সেখানে স্বামী-স্ত্রী ছাড়া অন্য কেউ না থাকলে পর্দার দরকার নাই। স্বামী-স্ত্রী একে অন্যের লেবাস বা পোশাক। উভয়ে উভয়ের সব কিছু দেখতে পারে। মহান আল্লাহ বলেছেন, যারা নিজেদের যৌনাঙ্গকে সংযত রাখে। তবে তাদের স্ত্রী ও মালিকানাভুক্ত দাসীদের ক্ষেত্রে সংযত না রাখলে তারা তিরস্কৃত হবে না। অতঃপর কেউ এদেরকে ছাড়া অন্যকে কামনা করলে তারা সীমালংঘনকারী হবে। [সুরা মুমিনুন, আয়াত : ৫-৭]

আরো ইরশাদ হয়েছে, এবং যারা তাদের যৌন-অঙ্গকে সংযত রাখে; কিন্তু তাদের স্ত্রী অথবা মালিকানাভূক্ত দাসীদের বেলায় তিরস্কৃত হবে না। অতএব, যারা এদের ছাড়া অন্যকে কামনা করে, তারাই সীমালংঘনকারী। [সুরা মাআরিয, আয়াত : ২৯-৩১]

উল্লেখ্য আলোচ্য আয়াতে মালিকানাভূক্ত দাসী বলতে আমাদের বাড়ী-ঘরে কাজের মেয়ে নয় বরং জিহাদের ময়দানে বন্দীকৃত নারীদেরকে গনিমতের মাল হিসাবে ধরা হয়েছে। এখন ঐ ব্যবস্থা রহিত করা হয়েছে।

স্বামী-স্ত্রী বিবস্ত্র হয়ে সহবাস করতে শরীয়তে কোন বাধা নাই এবং একে অপরের গোপন অঙ্গ দেখতে পারবে। [ফাতওয়া ইবনে উসাইমিন]

রাসুল [সা.] বলেছেন, তুমি তোমার স্ত্রী ও দাসী ছাড়া অন্যের নিকটে গোপনাংগের হেফাজত কর। সাহাবী বললেন, হে রাসুল [সা.]! লোকেরা আপোসে এক জায়গায় থাকলে? তিনি বললেন, যথাসাধ্য চেস্টা করবে, কেউ যেন তা মোটেই দেখতে না পারে। সাহাবী বললেন, হে রাসুল [সা.]! কেউ যদি নির্জনে থাকে? তিনি বললেন, মানুষ অপেক্ষা আল্লাহ বেশী হকদার যে, তাকে লজ্জা করা হবে। [আবু দাউদ, তিরমিজী, ইবনে মাজাহ, মিশকাত: ৩১১৭]

আপনার মতামত জানান ...

comments