অ্যাডমিন ক্যাডার পছন্দ হলে আপনাকে যা অবশ্যই জানতে হবে

১. কেন অ্যাডমিন ক্যাডার ১ম পছন্দ ?
… অনেক কথা বললেও সংবিধানের এই অনুচ্ছেদ অবশ্যই দিবেন
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান এর ২১(২)অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, “সকল সময়ে জনগনের সেবা করিবারচেষ্টা করা প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত প্রত্যেক ব্যক্তির কর্তব্য।” আরবিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডার থেকে জনগনের সেবা করার সুযোগসবচেয়ে বেশি বলে এ ক্যাডার আমার প্রথম পছন্দ।

২. Pressure group কাকে বলে ?
Pressure group হলো সরকারের নীতি বা কর্ম পদ্ধতিকে প্রভাবিত করার জন্য লালিত দল বা সংগঠন । আমলাদের বিভিন্ন ক্যাডার বা পেশাজীবী সংগঠন সরকারের নীতি নির্ধারণের সময় pressure group হিসেবে কাজ করে।

৩.আমলাতন্ত্র কাকে বলে?
বৃহত্ ও জটিল পদসোপান সমৃদ্ধ সাংগঠনিক পদ্ধতিকে আমলাতন্ত্র বলে।

৪.ডি ফ্যাক্টো কাকে বলে ?
প্রকৃতি পক্ষে আইনগতভাবে যা হওয়অ উচিত তার চাইতে ভিন্নতর বিরাজমান অবস্থা বন্দুকের মুখে ক্ষতা দখলকারী একটি সরকার ওই দেশের জন্য বৈধ না হলেও বাস্তবতার কারণেই সে সরকারকে ডি ফ্যাক্টো বা প্রকৃত সরকার বলা হয়।

৫.ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্স ?
কূটনৈতিক কোরের সদস্যবর্গসহ,রাষ্ট্রের নির্বাহী,আইন ও বিচার বিভাগের কর্মকর্তাদের পদের আপেক্ষিক মানক্রমকে W.Pবলে|

৬.ডিক্রী ও রায়ের মাঝে মৌলিক তফাত কী?
কোন মামলার বিচার কাজ সম্পন্ন হলে বিচারক যে সংক্ষিপ্ত আদেশ দেয় তাই রায়। আর যে রায়ের মাধ্যমে মামলার চুড়ান্ত ফয়সালা হয়ে যায় তাই ডিক্রি

7.সান্ধ্য আইন কি ?

বেআইনী সমাবেশ

বেআইনী সমাবেশ (ইংরেজি: Unlawful assembly) হল একটি আইনের বর্ণনা যার মাধ্যমে ইচ্ছাকৃতভাবে ঝামেলা করার উদ্দেশ্যে কিছু লোকদের একত্রিত হওয়াকে বুঝানো হয়ে থাকে। এই দলটি যদি ঝামেলা কাজ শুরু করে তবে, এটিকে ছত্রভঙ্গ বলা হয়; যদি ঝামেলা বা অস্থিতি অবস্থার সৃষ্টি হয় তবে এটিকে দাঙ্গা হয় বলা।

১৪৪ ধারা সম্পাদনা

১৪৪ ধারা হল বাংলাদেশ এবং পাকিস্তান/ভারতের দন্ডবিধির একটি অধ্যায়। এই আইনে ৫জন অথবা এর থেকে বেশি ব্যক্তির একত্রে চলাচল, সমবেশ করা এবং আগ্নেয়াস্ত্র বহন করা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।জরুরী অবস্থা বা আসন্ন বিপদে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য এই আইনের প্রয়োগ করা হয়। ১৯৭৬ সালে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ গঠনের পর বাংলাদেশে এই আইন প্রয়োগ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

সামগ্রিক অবস্থাকে সান্ধ্য আইন বলে।

9.Inquiry and Investigation এর মধ্যে পাথর্ক্য কি?
Inquiry and Investigation উভয়েরেই শাব্দিক অর্থ তদন্ত করা । কিন্তু ব্যবহারিকভাবে এ দুটির মধ্যে বিস্তর পাথর্ক্য রয়েছে। যেমন : Code of crrriminal Procedure ( CrPC) ব্যতিরেকে যেসব তদন্ত অনুষ্ঠিত হয় তাকে Inquiry বলে । সাধারণত অপরাধী শনাক্ত করার কাজে অনুষ্ঠিত হয় । যেমন – বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো ঘটনা ঘ(টলে গঠন করা হয়।

পুলিশ অথবা ম্যাস্ট্রেট কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত অপর কোনো ব্যক্তি এর সাক্ষ্য প্রমাণ সংগ্রহের জন্য যে তদন্ত পরিচালনা করে তাকে Investigation বলে । এ Investigation committee সাধারণত অপরাধী জ্ঞাত থাকে এবং সাক্ষ্য প্রমাণ সংগ্রহই উদ্দেশ্য ।

10.De Jure দ্বারা কি বুঝানো হয়?
আইনগতভাবে যা বৈধ , ন্যায়নুগ তা হলো De Jure । গণতানিত্রকভাবে নির্বাচিত একটি সরকার কোন দেশের জন্য ডি জ্যুর বা বৈধ সরকার

11.লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নির্বাহী কর্মকর্তার পদবি কি?
রেক্টর
12. ৪২০ কি?
বাংলাদেশ প্যানাল কোড -এর একটি ধারা যাতে প্রতারণার জন্য শাস্তির বিধান আছে।

13.বাংলাদেশে ‘ সিভিল সার্ভিস দিবস ’ কবে?
`১ সেপ্টে

14.সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদ অনুযায়ী বিসিএস কর্মকর্তাগণ নিয়োগ লাভ করতে পারে?
-১৪০

15.আ্যাক্ট ও অর্ডিন্যান্স – এর মধ্যে পাথর্ক্য কি?
দেশের জাতীয় সংসদে বিল আকারে উপস্থাপন করে যথাযথ নিয়মানুযায়ী যে আইন করা হয় ,তাকে ্অ্যাক্ট বলে। গুরুত্ব অনুযায়ী সংবিধানের পরেই এর অবস্থান দেশে সংসদ আছে , কিন্তু সংসদ অধিবেশন নেই , এমতাবস্থায় দেমের জরুরি প্রয়োজনে প্রসিডেন্ট যে বিধিমালা জারি করে , তা অর্ডিন্যান্স(অধ্যাদেশ )। পরে সংসদের প্রথম বৈঠকে জারি অদ্যাদেশগুলো উপস্থাপন করে ৩০ দিনের মধ্যে অনুমোদন করতে হয় ।৩০ দিনেরে মধ্যে অধ্যাদেশ অনুমোদন না করলে সেগুলো অকার্যকর হয়ে যাবে বলে সংবিধানের ৯৩(২) অনুচ্ছেদে সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ রয়েছে।

16. Spoil System কাকে বলে ?
নির্বাচনে যে দল সরকার গঠন করবে সে দল থেকে সরকারি পদে লোক নিয়েঅগ করার পদ্ধতিকে বলে । বর্তমানে যুক্তরাষ্টের সমগ্র সিলি ্যক্তিদের শতকরা ৫জন ভাগ নিয়োগ এর ভিত্তিতে দেয়া হয়।

17. টাস্কফোর্স কাকে বলে ?
স্বল্প সময়ের জন্য কোনো সংগঠনের কোনো গুরুত্র সম্যসা সমাধান করার লক্ষ্যে বিভিন্ন শাখা বা পেশার সদস্যদের নিয়ে গঠিত দলকে টাস্কফোর্স বলে।

১৮. ফিফথ কলাম বা পঞ্চম বাহিনী
দেশের স্বাথ বিরোধী কর্মকান্ডে লিপ্ত ব্যক্তিদের পঞ্চম বাহিনী বলা হয় । স্পেনের গৃহযেুদ্ধের সময় জেনারেল ফ্রাংকো রিপাবলিকানদের আক্রমণ করার সময় বিপক্ষ দলের পিছনে যে দলটি চিল , তাকে জলা হতো পঞ্চম বাহিনী । এরা রিপাবলিকানদের সাথে মিশে ধ্ংসাত্মক কাজ করতে।

১৯. রূলস অব বিজনেস কি?
যে দলিল অনুযায়ী বাংলাদেশে সরাকরের বিভিন্ন মন্থ্রণালয় বা বিভাগেরমেধ্যে বিভিন্ন কার্যাবলী বন্টন করা হ৮য় এবং কে, কোন দায়িন্তব পালন করবে , কিভাবে ালন করবে , কোন মন্ত্রণালয় বা বিভাগরে কার্যাবলী কি হবে তহা নির্ধারণ করা হয় তাই হলো রুলস অব বিজনেস ।

২০. আয়রণ কার্টেন কি?
কমিউনিস্ট দেশ কর্তৃক অভ্যন্তরীণ বিষয়াদির বহি:প্রকাশ রোধ করার জন্য সংবাদ , বিদেশীদের আগমন ইত্যাদির উপর বিধি -নিষেধ আরোপ করা হয় । এ পদ্ধতি আয়রন কার্টেন বা লৌহ যবনিকা ব লে । চীন দেম কর্তৃক গহিীত ব্যবস্থাকে ব্যাম্বো কার্টেন বলে।

অন্যরা যা পড়ছেঃ